1. admin@dainiksomoy24.com : admin :
বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
২০১৮ সাল থেকে সংবাদ পরিবেশনে জনপ্রিয় দৈনিক সময় ২৪.কম। সারা বাংলাদেশের সকল জেলা ও উপজেলা এবং স্টাফ রিপোর্টার, বিশেষ প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে যোগাযোগ করুন 01716605694
শিরোনাম :
সাকিব খান যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি পেয়েছে হাতীবান্ধায় ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ইভিএম এর উপর জনগণের কোন আস্থা নাই : বাংলাদেশ ন্যাপ চিত্রনায়িকা অঞ্জনার জন্মদিনে জায়েদ খানের শুভেচ্ছা পদ্মা সেতুতে স্পিডগান সিসিটিভি বসানোর পরে বাইক চলাচলে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বরগুনায় হাতকড়াসহ পলাতক মাদক মামলার আসামি গ্রেফতার সৌদি আরবে হজ্জ যাত্রী ভিক্ষা করে বাংলাদেশী হাজী আটক পদ্মা সেতু‌ রেলিংয়ের নাট‌ বল্টু খুলে আলোচিত বায়েজিদের গ্রা‌মের বাড়ীতে ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা পিডিএম প্রধান ফজলুর রেহমান বলেছেন ইমরান খানকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেয়ার জন্য তিনি দায়ী পদ্মা সেতুতে পেঁয়াজবাহী একটি ট্রাক উল্টে চালকসহ তিনজন আহত হয়েছেন

বাবার হাত শক্ত করে ধরে প্রথম রাজপথে স্লোগান দিয়েছি : ইয়াসমিন

দৈনিক সময় ২৪
  • আপডেট সময় : বুধবার, ৯ মার্চ, ২০২২
  • ৪৪ বার পঠিত

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

৫২’র মহান ভাষা সৈনিক ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক নারায়ণগঞ্জের কৃতিসন্তান আবুল কাশেমের কন্যা এবং নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক, বাকশাল নেতা আব্দুর রহমানের স্ত্রী ৬ দফা আন্দোলনের রাজপথের সাহসী যোদ্ধা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী ফরিদা ইয়াসমিন মিনু’র সাথে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চে তার নারায়ণগঞ্জ বাসভবনে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির চেয়ারম্যান মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা ও জাসদ সুনামগঞ্জ জেলার সভাপতি এনামুজ্জামান চৌধুরী এবং বিশিষ্ট লেখক ও কবি আসমা সরকার সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভাষাসৈনিক কাজী আবুল কাশেমের বড় ছেলে ইঞ্জিনিয়ার কাজী আব্দুর রশিদ মাসুম ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কাজী হারুন-অর-রশিদ, শিক্ষানবিশ আইনজীবী হ্যাপি আক্তার ও চিত্রশিল্পী তপু ও তানহাসহ প্রমুখ।

এসময় উপস্থিত নেতৃবৃন্দ কাজী ফরিদা ইয়াসমিন মিনু’র হাতে একটি বই তুলে দেন, যে বইটি আসমা সরকার এই মহান মুক্তিযোদ্ধাকে নিয়ে লিখেছেন ‘মুক্তির পিতা শেখ মুজিব’। বইটি হাতে পেয়ে ফরিদা ইয়াসমিন মিনু অতিতে হারিয়ে যান। তিনি বলেন সেই ১৯৫২ সালে প্রথমে বাবার হাত শক্ত করে ধরে বাংলা ভাষার জন্য নারায়ণগঞ্জে স্লোগান দিয়েছিলাম। পরবর্তীতে ৬ দফা আন্দোলনে রাজপথে আমি আমার বন্ধুদের সাথে নিয়ে সরাসরি অংশগ্রহণ করেছি। নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী কাজী পরিবারে আমার জন্ম।

মুক্তিযুদ্ধকালীন সময় আমার পরিবার অসহায়দের পাশে ছিল নিঃস্বার্থভাবে। সেই থেকে মুক্তির চেতনায় সদা জাগ্রত ছিলাম ৭১ থেকেই। দেশ ও দশের কল্যাণে ছুটে বেড়িয়েছি দেশের একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। কখনও অন্যায়ের কাছে আপোষ করিনি। বঙ্গবন্ধুকে খুব কাছ থেকে দেখেছি, তাঁর সাথে কথা বলেছি। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অনেক স্মৃতি রয়েছে আমাদের। কিন্তু এতটি বছর পার হয়ে গেল বঙ্গবন্ধুর কন্যার সাথে আজও দেখা হলো না। মৃত্যুর আগে যদি বঙ্গবন্ধুর কন্যার সাথে একবার দেখা করে কথা বলে যেতে পারি সেটিই আমার জীবনের সবচেয়ে বড় স্বার্থকতা।

তিনি বলেন আমার ছোট ছেলে তপু আন্তর্জাতিকভাবে ছবি একে দেশে-বিদেশে অনেক সুনাম অর্জন করেছে। বঙ্গবন্ধুর কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নিজে তার হাতে পুরস্কার তুলে দিয়েছে। হয়তো সে সময় বঙ্গবন্ধুর কন্যা জানতেই পারেনি তার বাবার সাথে আমাদের আজও রক্তের সম্পর্ক রয়েছে। আমরা মানুষের জন্য রাজনীতি করি। কখনও কোন পদের জন্য কারো কাছে যাইনি। আমার স্বামী ও ভাই তারাও যায়নি। তবুও এদেশ ও মাটির সাথে আমাদের যে সম্পর্ক সে সম্পর্ক মুছে ফেলি কি করে।
এসময় বিশেষ সাক্ষাৎকারে নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান বলেন আমরা প্রথম নারায়ণগঞ্জে স্বাধীনতার পতাকা উত্তলন করেছিলাম।

বঙ্গবন্ধুর সাথে অনেক স্মৃতি রয়েছে। নারায়ণগঞ্জ বাকশালের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছিলাম। আমার দুঃখ আজও নারায়ণগঞ্জের যেসব জায়গায় পতাকা উত্তলন করা হয়েছিল, স্বাধীনতার ৫০ বছর পার হয়ে যাওয়ার পরও তা আজও স্পষ্ট করা হয়নি। আমার শশুর বাড়ী মুক্তিযুদ্ধের বৈঠক খানা ছিল, সেখান থেকে অনেক কিছুই হয়েছে। কিন্তু তাদের তেমন কোন মূল্যায়ন হয়নি, আজও ভাষাসৈনিকদের তালিকা করা হয়নি। যা ভাষা আন্দোলনের ৭০ বছর পরও আমাদের রক্তক্ষরণ হয়। লেখক ও কবি আসমা সরকার বলেন, আমি অত্যন্ত আনন্দিত ও গর্বিত, আমার হাত থেকে ‘মুক্তির পিতা শেখ মুজিব’ লেখা হয়েছে। আমি সত্যটাকে তুলে ধরার চেষ্টা করছি। ভবিষ্যতে ইতিহাসের সত্য উচ্চারণ এভাবেই করে যাবো। তিনি আরো বলেন, আমি সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করি। তাদেরকে অক্ষর শিখাই, দেশপ্রেম শিখাই।

আশা করছি সকলে আমার পাশে থাকবেন। মার্চের এই উত্তাল দিনে স্বাধীনতার ৫১ বছরের এমন সময় দেশবরেণ্য এক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সাথে আমরা সারাদিন কথা বলেছি, তাদের গৌরবগাথা ইতিহাস তুলে ধরার চেষ্টা করছে। বাকিটা পাঠক ও রাষ্ট্রের কাছে ছেড়ে দিলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  

ফেসবুকে আমরা