1. admin@dainiksomoy24.com : admin :
মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
২০১৮ সাল থেকে সংবাদ পরিবেশনে জনপ্রিয় দৈনিক সময় ২৪.কম। সারা বাংলাদেশের সকল জেলা ও উপজেলা এবং স্টাফ রিপোর্টার, বিশেষ প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে যোগাযোগ করুন 01716605694
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুতে পেঁয়াজবাহী একটি ট্রাক উল্টে চালকসহ তিনজন আহত হয়েছেন অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে সর্বস্ব হারিয়ে বাসযাত্রী উত্তম চন্দ্র মিথ্যা অপবাদে শিক্ষকের গলায় জুতার মালা কিসের ইঙ্গিত : বাংলাদেশ ন্যাপ কানাইঘাটে বিএমএসএফ ও রেড ক্রিসেন্টের যৌথ উদ্যোগে বন্যার্তদের ফ্রি ঔষধ বিতরন তিতাসে মাদকদ্রব্য রোধকল্পে কর্মশালা অনুষ্ঠিত পদ্মা সেতুতে টোল প্লাজার সামনে বাইক চালকদের বিক্ষোভ পাবনায় একসঙ্গে তিন ছেলে সন্তানের জন্ম নাম পদ্মা সেতু ও উদ্বোধন দেশে ফিরেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের পদ্মাসহ সকল সেতুতে সাংবাদিকদের টোল ফ্রি করা উচিৎ : বিএমএসএফ জোবায়দা রহমানের রুল খারিজ দ্রুত মামলা নিষ্পত্তি করতে বিচারিক আদালতের প্রতি নির্দেশ হাইকোর্টের

টাকার অভাবে আইসক্রিম বিক্রেতা সোহাগ

দৈনিক সময় ২৪
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ, ২০২২
  • ৪৪ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কিশোরের নাম সোহাগ ইসলাম। বয়স হবে আনুমানিক ১২ বছর। তার বাবা নুরুজ্জামান আহম্মেদ একজন ভ্যানচালক। মা ছামছুর নাহার গৃহিনী। যে বয়সে বইখাতা হাতে নিয়ে তার বিদ্যালয়ে যাওয়ার কথা সেই বয়সে দরিদ্র সংসারে আর্থিকভাবে বাবা-মা’কে সহযোগীতা করতে সে হয়েছেন আইসক্রিম বিক্রেতা।

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার নওদাবাস ইউনিয়নের কেকতীবাড়ি এলাকার কিশোর সোহাগ ইসলাম। সোহাগ স্থানীয় কেকতীবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। তবে এলাকার সাধারণ আর দশটা কিশোরের মতো জীবন চলে না তার।

অভাবের তাড়নায় সংসারের হাল ধরতে প্রতিদিন সাইকেলের পিছনে আইসক্রিমের বাক্স নিয়ে বেড়িয়ে পড়েন সোহাগ। এভাবেই টাকা উপার্জনের লক্ষ্যে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আইসক্রিম বিক্রি করে সে।

কিশোর সোহাগ বলেন, সারাদিন ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকার আইসক্রিম বিক্রি করি। আইসক্রিম ক্রয় বাবদ মালিককে দিতে হয় ২৫০ টাকা। আর বাকি যে টাকা জমা থাকে সেটা বাবার হাতে তুলে দিই।

সোহাগ আরও বলেন, আগে আইসক্রিম বিক্রি করতাম না। করোনা ভাইরাসের কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় লেখাপড়ার পাশাপাশি আইসক্রিম বিক্রি শুরু করি। তখন থেকেই আইসক্রিম বিক্রি করে আসছি। তাছাড়া বাবা অসুস্থ হওয়ায় আর আগের মতো ভ্যান নিয়ে চলতে পারেনা। তাই লেখাপড়ার পাশাপাশি আইসক্রিম বিক্রি করে যে টাকা উপার্জন করি সেটা সংসারের কাজে দিই।

কিশোর সোহাগের মা ছামছুর নাহার বলেন, সোহাগের বাবা একজন যক্ষা রোগী। তাই আগের মতো পরিশ্রম করতে পারেনা। বাড়িতে চারজন মানুষের সকল খরচ একাই চালানো অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তাই লেখাপড়ার পাশাপাশি আইসক্রিম বিক্রি করে সংসারে যে টাকা দেয় সেটা দিয়ে তার বাবার কষ্ট কিছুটা কমে।


কেকতীবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান বলেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় অনেক শিক্ষার্থী কাজে জড়িয়ে পড়েছে। সোহাগের বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে খোঁজ নিয়ে যতটুকু সম্ভব স্কুল থেকে তাকে সহযোগিতা করা হবে। এ ছাড়া সোহাগকে সহযোগিতা করতে সমাজের বিত্তবান মানুষকে এগিয়ে আসার অনুরোধ করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  

ফেসবুকে আমরা